সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন সংগ্রহ করলেন মাহবুবুল হক শাকিলের স্ত্রী

  • ১৬-জানুয়ারী-২০১৯

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

একাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে লড়তে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী প্রয়াত মাহবুবুল হক শাকিলের স্ত্রী নীলুফার আঞ্জুম পপি।

মঙ্গলবার (১৫ জানুয়ারি) আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে পপি মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন।

মনোনয়ন ফরম সংগ্রগের বিষয়টি নিশ্চিত করে নীলুফার আঞ্জুম বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি আমাকে সুযোগ দেন, আমি যদি নির্বাচিত হই তাহলে দেশের নারীদের জন্য কাজ করব।’

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ময়মনসিংহ-৩ গৌরীপুর আসনে নৌকা প্রতীককে বিজয়ী করতে মাঠে নামেন। নৌকা প্রতীকের প্রার্থী অ্যাডভোকেট নাজিম উদ্দিন আহমেদ বিপুল ভোটে নির্বাচনে জয়লাভ করেন। এরপরেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে পপি সম্ভাব্য প্রার্থী, সংরক্ষিত আসনে এমপি হিসাবে দেখতে চাই লিখে তাঁর কর্মী সমর্থকরা প্রচারণায় সরগরম। এরপরেই পপি’র কর্মী-সমর্থকরা সংরক্ষিত আসনে নারী কোটায় এমপি হিসাবে দেখতেই শ্লোগানে শুরু করেন প্রচার-প্রচারণা।

উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিলার মোফাজ্জল হোসেন খান জানান, তিনি গৌরীপুরে নৌকার প্রচারণায় জোয়ার এনেছিলেন। বঙ্গবন্ধু’র আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধে লড়াকু পরিবারের কন্যা পপি। পৌর কাউন্সিলার আব্দুল কাদির জানান, সংগঠনের দু:সময়ে যারা থাকবে এমনদেরকেই নির্বাচিত করা উচিত।

ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য নিলুফার আনজুম পপি। গৌরীপুরের সাবেক সফল চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাসিমের কন্যা। তাঁর শ্বশুড় ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট জহিরুল ইসলাম খোকা।

সংরক্ষিত আসনে পপি’র মনোনয়ন সংগ্রহের পর আবার ময়মনসিংহের আলোচনায় উঠে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর বিশেষ সহকারি প্রয়াত মাহবুবুল হক শাকিল। তিনি চির বিদায় নেন ২০১৬সালের ৫ ডিসেম্বর। ছিলেন একজন সুনামধন্য লেখক। প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী (মিডিয়া)। তার আগে ৫ বছর প্রধানমন্ত্রীর উপ প্রেসসচিব হিসেবে কাজ করেন। ঢাবি এফএইচ হলের সাবেক জিএস, ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সাংগঠনিক সম্পাদক। তাঁর প্রকাশিত বইগুলো মধ্যে রয়েছে ‘খেরোখাতার পাতা থেকে’ ‘মন খারাপের গাড়ী’ ও ‘জলে খুঁজি ধাতব মুদ্রা।

শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান নিলুফার আনজুম পপি। তাঁর দাদা ছাবেদ আলী বেপারীকে ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের ধরে নিয়ে যান। তিনি আজও ফিরে আসেননি।